জাতীয়

বিয়ে করলেন ছেলে, স্কুল শিক্ষক বাবাকে কান ধরে উঠবস করালেন ওসি

ছেলে পালিয়ে বিয়ে করায় তার স্কুল শিক্ষক বাবাকে কান ধরে উঠবস করানোর অভিযোগ উঠেছে ফরিদপুরের মধুখালী থানার ওসির বিরুদ্ধে।

বিয়ে মেনে না নিতে পারায় আরও নানা ধরনের হয়রানির অভিযোগ উঠেছে কনের পরিবারের বিরুদ্ধে। এ অবস্থায় নিরাপত্তা চেয়ে জিডি করেছেন ভুক্তভোগী দম্পতি।

চলতি মাসের ১১ তারিখ ফরিদপুরের মধুখালীর বাসিন্দা সেতু ঘোষ পালিয়ে বিয়ে করেন একই এলাকার বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী সজীব বিশ্বাসকে।

এই দম্পতির অভিযোগ, বিয়ে মেনে নিতে পারেনি বিত্তশালী সেতুর পরিবার। বিয়ের পর থেকেই সজীবের পরিবারের উপর নানাভাবে হয়রানি করছে তারা।

হয়রানি থেকে বাঁচতে সংবাদ সম্মেলন করেছে ভুক্তভোগী সেতু বিশ্বাস ও সজিব বিশ্বাস।

সংবাদ সম্মেলনে সেতু বিশ্বাস জানান, তিনি সাবালিকা এবং নিজ ইচ্ছায় বাড়ি থেকে পালিয়ে বিয়ে করেছেন। সজিবের পরিবার বিত্তশালী না হওয়ায় তার শ্বশুরবাড়ির লোকজনদের নানাভাবে হয়রানি করা হচ্ছে। এমনকি তার শ্বশুরকে থানায় ডেকে শারীরিক নির্যাতনের পাশাপাশি ওসি কান ধরে উঠবস করিয়েছেন বলে অভিযোগ করেন সেতু।

থানায় ডেকে নিয়ে সজীবের স্কুল শিক্ষক বাবা সুশান্ত কুমার বিশ্বাসকে কান ধরে ওঠবস করানো হয়। করা হয় মারধরও।

সজীব বিশ্বাস বলেন, থানায় উপস্থিত সবার সামনে বাবাকে কান ধরে উঠবস করান থানার ওসি। এ সময় শারীরিক নির্যাতনও করেন ওসি। সজিবের প্রশ্ন একজন শিক্ষকের সঙ্গে থানার ওসি কী এমন আচরণ করতে পারেন?

সজীবের বাবা সুশান্ত কুমার বিশ্বাস জানান, থানায় পৌঁছানোর সঙ্গে সঙ্গেই আমাকে শার্টের কলার ধরে ওসির কক্ষে নিয়ে যায়। ওসির রুমে সে সময় বসা ছিলেন মেয়ের কাকা ও তার সহযোগিরা। এ সময় তিনি সবার সামনে নানা অপমানজনক কথা বলার পাশাপাশি কান ধরে উঠবস করানো হয় এবং লাঠি দিয়ে আঘাত করেন।

তবে, এই অভিযোগ অস্বীকার করেছেন মধুখালী থানার ওসি আমিনুল ইসলাম। তিনি জানান, মেয়েপক্ষের লোক অবস্থা সম্পন্ন আর ছেলেপক্ষ গরিব এটা সত্য। তারা দুই পক্ষ আসছিলো। মাস্টার বলেন, আমাকে দুইদিন সময় দিন, এরমধ্যে হাজির করবো। এখন যে সে উল্টাপাল্টা কথা বলে বেড়াচ্ছে। সত্য না, তারা যদি আকাশে উঠেও বলে, মঙ্গল গ্রহে গিয়ে বলুক, প্রমাণ করতে হবে তো তাই না।

এদিকে, মিথ্যা মামলায় ফাঁসানোর পাশাপাশি হত্যার হুমকি পাওয়ায় রাজধানীর সবুজবাগ থানায় নিরাপত্তা চেয়ে সাধারণ ডায়েরি দায়ের করেছেন সেতু ও সজীব।

Related Articles

Close